fbpx

মুক্তিযুদ্ধে ভারতের ভূমিকা

মুক্তিযুদ্ধে ভারতের ভূমিকা
বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারতের ভূমিকার চিত্র

মুক্তিযুদ্ধে ভারতের ভূমিকা মূল্যায়ন

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে মিত্র বাহিনীর ভূমিকা রাখতে ভারতকে হারাতে হয়েছিল বহু অফিসার ও সৈনিককে। ১৯৭১ সালে র্পূব ও পশ্চিম রণাঙ্গন মিলে শহীদ ভারতীয় সৈন্যের সংখ্যা ৩৬৩০ জন, নিখোঁজ ২১৩ জন এবং আহত ৯৮৫৬ জন। যাঁদের রক্ত এই স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে মিশে রয়েছে।বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধে প্রতিবেশী রাষ্ট্র হিসেবে ভারতের ভূমিকা অবিস্মরণীয়।

২৬ মার্চ ১৯৭১ প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইপিআরের ওয়ারলেস যোগে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী কাছে একটি বার্তা বা বাণী প্রেরণ করেন তিনি সেখানে উল্লেখ করেছিলেন “This may be last message to you from today Bangladesh is independent” এটাই বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা এবং ঐ মুহূর্ত থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন। অতপর ৪ এপ্রিল ১৯৭১সিলেটের তেলিয়াপাড়া চা বাগানে (বর্তমান হবিগঞ্জ ) এমএজি ওসমানের নেতৃত্বে ৫০০০সামরিক ও ৮০০০বেসামরিক মোট ১৩ হাজার যোদ্ধা নিয়ে মুক্তিফৌজ নামে মুক্তিবাহিনী গঠন করা হয়েছিল। ১২ এপ্রিল ১৯৭১ সালে মুক্তিফৌজ নাম পরিবর্তন করে বাহিনীটির নামকরণ করা হয় মুক্তিবাহিনী।
পরবর্তীতে বিদেশে অর্থাৎ প্রবাসী সরকার গঠন করা হয় এবং এই সরকার মুজিবনগরে শপথ গ্রহণ করে এবং বাংলাদেশের প্রথম সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদের নির্দেশে প্রধান সেনাপতি এমএজি ওসমানী সমগ্র বাংলাদেশকে ১১টি সেক্টরে বিভক্ত করে যুদ্ধ পরিচালনা করেন। কিন্তু এরপরেও পাকিস্তানিদের সঙ্গে বেড়ে ওঠা বেশ দুরূহ ছিল।আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত যুদ্ধের সূচনা লগ্ন থেকেই আমাদেরকে সহযোগিতা করেছে এবং ওতপ্রোতভাবে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে জড়িত ছিল। কাজেই এই প্রেক্ষাপটে আমি মনে করি বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের ভূমিকা আলোচনা করা প্রয়োজন।

মুক্তিযুদ্ধে ভারত বাংলাদেশের শরণার্থীদেরকে আশ্রয় প্রদা

মুক্তিযুদ্ধে ভারত বাংলাদেশের শরণার্থীদেরকে আশ্রয় প্রদানঃ ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারত বাংলাদেশের প্রায় এক কোটি শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়েছিল। ভারত সরকারের মতে নভেম্বর ১৯৭১ সাল পর্যন্ত ভারতে বাংলাদেশের মোট শরণার্থী ছিল ৯৮,৯৯,৩০৫ জন। এর মধ্যে অধিকাংশ শরণার্থী সরকারনিয়ন্ত্রিত শরণার্থী ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছিলেন। তবে বেশ উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শরণার্থী বিভিন্ন আত্মীয়স্বজনের বাসায় আশ্রয় নিয়েছিলেন। তবে সবচাইতে বেশি শরণার্থী ক্যাম্প ছিল পশ্চিমবাংলায় এখানে শরণার্থী ক্যাম্প ৪৯২ টি, এরপর ত্রিপুরা রাজ্যে ২৭৬ টি, এসব জাগয়া ছাড়া্ও আসাম, মেঘালয়, বিহার এবং ভারতের উত্তরপ্রদেশে শরণার্থী ক্যাম্পগুলো অবস্থিত ছিল। যেখানে প্রচুর পরিমাণে বাংলাদেশি শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় নিয়েছিলেন।
বহির্বিশ্বে জনমত গড়ে তুলতে ভূমিকাঃ মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে ভারত সরকার শুরু থেকেই বাংলাদেশের পাশে ছিল। এবং ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী তিনি বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে জনমত গড়ে তুলতে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন।১৮ মে ১৯৭১ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী বিশ্বের বৃহৎ শক্তির কে উদ্দেশ্য করে বলেন “ শরণার্থীদের বোঝা বহন করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসা উচিত।” তার এই বক্তব্য থেকে প্রমাণিত হয় যে, বহির্বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষণ করার ক্ষেত্রে এবং বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে একটি বিশেষ জায়গায় পৌঁছানোর জন্য শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধীর ভূমিকা ছিল অবিস্মরনীয়।
সামরিক প্রশিক্ষণ প্রদানঃ মুক্তিযুদ্ধে আগ্রহী বাংলাদেশিদেরকে ভারতীয় বাহিনী সেদেশে সরাসরি অস্ত্র ও যুদ্ধের প্রশিক্ষণ দিয়ে যুদ্ধ উপযোগী করে আবার বাংলাদেশে পাঠিয়েছে। এবং এ সময় ভারতের দেরাদুন ভারতীয় সামরিক বাহিনীর সদস্যরা বাংলাদেশি জনগণকে প্রশিক্ষণ দিয়েছে। এবং পরবর্তীতে তারা আবার বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে সরাসরি যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছে।

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র পরিচালনা সহযোগিতায়

২৬শে মার্চ ১৯৭১ সালে চৌধুরী বেলাল মোহাম্মদের নেতৃত্বে চট্টগ্রামের কালুরঘাটে স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী বেতার কেন্দ্র নামে একটি বেতার কেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। পরদিন ২৭ মার্চ ১৯৭১ সালে বিপ্লবী শব্দটি বাদ দিয়ে বেতার কেন্দ্রের নাম করণ করা হয়েছিল স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র।এই বেতার কেন্দ্র থেকে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় বিভিন্ন বুলেটিন,চরমপত্র সহ মুক্তিযোদ্ধাদের উৎসাহিত করার জন্য বিভিন্ন অনুষ্ঠান, গল্প, গান ইত্যাদি প্রচার করা হতো। কিন্তু ৩০ মার্চ ১৯৭১সালে পাকিস্তান বিমান বাহিনীর এই কালুরঘাট স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে বোমা নিক্ষেপ করলে বেতার কেন্দ্র ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং এর সম্প্রচার যন্ত্রটি অকেজো হয়। এরপর এই বেতার কেন্দ্রের কলাকুশলী যখন ভারতে প্রবেশ করে তখন ভারত সরকার এদেরকে ট্রান্সফর্মার দিয়ে সহযোগিতা করেন। শুধু তাই নয় কলকাতায় এই স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে অফিস প্রতিষ্ঠা করতে ভারত সরকার সহযোগিতা করে। এবং পুরো যুদ্ধকালীন সময়ে কলকাতা থেকে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র বিভিন্ন ধরনের সংবাদ, অনুষ্ঠান প্রচার করে মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদান রাখে এবং এর পেছনে সরাসরি ভারত সরকারের সহযোগিতা ছিল।
যৌথবাহিনী গঠনঃ ২১ নভেম্বর ১৯৭১ সালে এমএজি ওসমানী ভারত-বাংলাদেশ যৌথ বাহিনী’ গঠনের ঘোষণা দেন। এবং তিনি ২১ নভেম্বর থেকে যৌথবাহিনী একসাথে কাজ করবে বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন।
সরাসরি যুদ্ধে অংশগ্রহণঃ ৩ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে পাকিস্তান বাহিনী ভারত কে আক্রমণ করলে ৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সাল থেকে ভারতীয় মিত্রবাহিনী বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে এবং সরাসরি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন।

বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদান

৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে ভারত অন্যতম বৃহৎ শক্তি হিসেবে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদান করেছিল। এবং স্বীকৃতি প্রদান করে বাংলাদেশের সব সময় সর্বদা সহযোগিতা করেছে।ভারতীয় মিত্রবাহিনী বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করার পর ১৬ ই ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে পাকিস্তান পূর্ব পাকিস্তানের সেনা প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল নিয়াজী আনুমানিক ৯৩ হাজার ঢাকার ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমানে সোহরা্ওয়ার্দী উদ্যান) যৌথ বাহিনীর অধিনায়ক জগজিৎ সিং অরোরার কাছে আত্মসমর্পণ করেন।
উপরিউক্ত আলোচনা থেকে আমরা একথা নিশ্চিত করে বলতে পারি যে, বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারত সরকার এবং ভারতীয় সেনাবাহিনী ওতপ্রোতভাবে বাংলাদেশের সঙ্গে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল। এবং বাংলাদেশ ১৬ ই ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে বিজয় রচনার ক্ষেত্রে ভারত সরকার এবং ভারতীয় বাহিনীর বিশেষ সহযোগিতা করেছিল সেটা অনিস্বীকার্য। এছাড়া ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে বিজয় অর্জনের পর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত বিভিন্ন সময়ে বাণিজ্যসহ বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগিতা হাত অব্যাহত রেখেছে। কাজেই একথা আমরা বলতে পারি ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারতের ভূমিকা ছিল ইতিবাচক। এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদান বাঙালি জাতি কখনোই ভুলতে পারবে না বলে আমি মনে করি।

বনজ সম্পদ

বাংলাদেশের বনজ ও খনিজ সম্পদ

বাংলাদেশের বনজ সম্পদ উদ্ভিদের বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে বাংলাদেশের বনভূমি তিন প্রকারঃ১.ক্রান্তীয় চিরহরিৎ ও পত্রপতনশীল বৃক্ষের বনভূমিঃ চট্টগ্রাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম ও সিলেটের এলাকা জুড়ে এ বনাঞ্চল বিস্তৃত।

Read More »
বাংলাদেশের কুটির শিল্প

বাংলাদেশের শিল্প সম্পদ

বাংলাদেশের শিল্প সম্পদ এর উন্নয়ন কৃষিপ্রধান দেশ বাংলাদেশ শিল্পক্ষেত্রে এখনও কাঙ্খিত সাফল্য অর্জন করতে পারেনি। শিল্পখাতগুলোতে যথাযথ দিকনির্দের্শন, পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা প্রদান, সরকারী আনুকুল্য প্রভৃতির মাধ্যমে

Read More »
শিক্ষা কমিশন

বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা

স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথম ‘বাংলাদেশ শিক্ষা কমিশন’ গঠন শিক্ষা কমিশনঃ ভারতীয় উপমহাদেশে শিক্ষা কমিশনের যাত্রা শুরু ১৮৮২ সালে। উইলিয়াম হান্টারকে প্রধান করে গঠিত এই কমিশনের অন্যতম

Read More »
Layer 1
Login Categories
error: Content is protected !!
এই ওয়েবসাইটটি কুকিজ ব্যবহার করে এবং আপনার ব্রাউজিং অভিজ্ঞতা মসৃণ করার জন্য আপনার কিছু ব্যক্তিগত তথ্য (ওয়েব ব্রাউজিং সম্পর্কীয়) সংরক্ষণ করে। আপনার ব্রাউজারের login-এর তথ্য সংরক্ষণের জন্যে "Ok, I acknowledge" বাটনে ক্লিক করুন।